ক্লোথিং বিজনেসে যারা আছে তাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেন্জ সঠিক মূল্যমানে পন্য বিক্রয় করা।

ক্লোথিং বিজনেসে যারা আছে তাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেন্জ সঠিক মূল্যমানে পন্য বিক্রয় করা।

বাজারে হাজার রকমের লোন আছে এবং সেই হাজার রকমের লোনের হাজার রকম কপি ও পাওয়া যাচ্ছে।

যেটার সুযোগ নিচ্ছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা ।যার কারনে অরিজিনাল ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

আবার এদিকে বেশীরভাগ মানুষ ব্যবসা করতে চায় কিন্তু ইনভেস্ট করতে চায় না যার দরুন কমিশন ভিত্তিক সেলারের সংখ্যা বাড়ছে ।এটার কারনে পন্য যতো হাত বদল হচ্ছে দামের তারতম্য তত বেশী হচ্ছে।

এটার কারনে অরিজিনাল সেলাররা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ।যতদিনে মানুষ বুঝতে পারছে ততদিনে এমন অনেক মেধাবী উদ্যোক্তা লস খেয়ে গুটিয়ে ফেলছে।

আমার ব্লক নিয়েই যদি বলি 450-3000 টাকা বা তার বেশী মূল্যমানের ব্লকের পন্য বাজারে আছে। দাম অনুযায়ী পন্যের কোয়ালিটি আপ ডাউন হয়। কিন্তু মানুষকে এটা কে বুঝাবে ,কিভাবে বুঝাবে।

1500-2000 টাকার থ্রিপিছকেও সেই 500 টাকার থ্রিপিছের সাথে তুলনা করে।

না জেনে বুঝেই কথা বলে কেননা উদ্যোক্তাদের পরিশ্রমের মূল্য বোঝার ক্ষমতা তাদের হয় নি।

একটা মানসম্মত ড্রেস তৈরি মানসম্মত কাচামালের ব্যবস্থা করতে হয়। এসব কাচামাল ম্যানেজ করতে যেয়ে রীতিমতো রোদে পুরে কাঠখর পুরায়ে কাজ করা লাগে।

ঢাকাতে ব্লকের ডাইজের কাঠ কেটে ডিজাইন করে কাজ করে এমন লোক খুজে পাওয়া সহজ নয়।দুই একজন যাদের পাবেন তাদের মধ্য থেকেও ভালো ফিনিশিংয়ের কাজটা বের করে আনতে হবে।

এসব কিছুই অনেক চাপ সহ্য করে ম্যানেজ করা কিন্তু সহজ কাজ নয়।

এগুলো কাস্টমারের বুঝার কোনই দরকার নেই। কস্টিং তো তারা জানেই ওরা 500 টাকায় পারলে আপনি কেন পারবেন না।

এসব ঝক্কি ঝামেলা ধরে রেখে বিজনেস চালানো সহজ কাজ নয়।

ধন্যবাদ
রোজিনাহোসেনঝুমা
www.designercollectionbd.com

Boost করলেই কি সেল পাওয়া যাবে

Boost করলেই কি সেল পাওয়া যাবে:
আপনি একজন পেজ ওনার।
পোস্টক্রিয়েট করার সাথে সাথেই পাশে দেখাবে Boost Post.

Boost দেখে অনেকেই ভাবেন বুস্ট করলেই সেল পাওয়া যাবে।
বুস্ট করলেই সেল পাওয়া যায় কথা সত্যি।
কিন্তু সঠিক নিয়মে বুস্ট করাটা জরুরী ।না হলে একটা সেল ও পাবেন না।
কেননা আপনি মনে করেন যেতে চান চট্টগ্রাম কিন্তু টিকেট কাটলেন যশোরের তাহলে কি পৌছাবেন???

আরেকটা বিষয় মনে রাখা জরুরী—ফেসবুক আমাদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করছে ঠিক আছে কিন্তু এখানে কিন্তু ফেসবুকের ও বিজনেস আছে।

বুস্ট সবাই করতে পারে না এটা এক্সপার্টদের কাজ।এখন বিষয় হচ্ছে চেহারা দেখে কিন্তু এক্সপার্ট বুঝা যায় না। তাহলে কিভাবে বুঝবেন ????

আপনি ডিজিটাল মারকেটিং নিয়ে একটু পরাশোনা করতে পারেন ,বুস্ট সম্পর্কে জানতে পারেন তাহলে যেটা হবে যাকে দিয়ে করাবেন তাকে আপনি আপনার জানার বাইরের বিষয়গুলা খুচিয়ে দেখবেন সে আপনাকে নতুন কি তথ্য দিচ্ছে। তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন কিছুটা হলেও তার অভিগ্ঞতা আছে।

আচ্ছা বুস্ট জিনিসটা কি??

সহজে বলতে গেলে যখন আপনি কোন একটা পার্লার বা কোচিং সেন্টার শুরু করেছেন সাথে কিছু লিফলেট বানিয়েছেন
সবার ঘরে ঘরে পৌছানোর জন্য। এখন আপনি 100 পিছ বানিয়েছেন 100 টাকা খরচ করে।তাহলে সেটা 100 জনের কাছে যাবে। দুই একটা প্রিন্ট আউট মিসটেক সবজায়গাতে থাকে ।এখানেও থাকতে পারে।

এখন আসেন কোচিং এ সবাই যায়???
সব ফ্যামিলিতে কি স্কুল গোয়িং থাকে???

তারাই যাবে যাদের প্রয়োজন। এর মধ্যে কিছু আগে থেকেই অন্য কোচিংয়ে অভ্যস্ত তাদের মধ্য থেকে দুই একজন আসতে পারে —এই আর কি।

টারগেটিং ঠিক না হলে অবশ্যই কাস্টমার পাবেন না। পুরো খরচটাই বৃথা।

তাই বুস্ট করার সময় অবশ্যই টারগেট ঠিক করে বুস্ট করতে হবে।

ধন্যবাদ।
আশা করছি উপকৃত হবেন।

www.designercollectionbd.com

হঠাৎ মনে হলো অার বিজনেস শুরু করে দিলাম, যেসব সমস্যার সম্মুখীন অাপনি হতে পারেনঃ

হঠাৎ মনে হলো অার বিজনেস শুরু করে দিলাম, যেসব সমস্যার সম্মুখীন অাপনি হতে পারেনঃ

প্রথমত, একটা পরিপূর্ণ সাজানো পেজ না হলে অাপনার পোস্টের রিচ অাসবে না। কিভাবে একটা পেজ সাজাতে হবে জানতে হবে।

দ্বিতীয়ত, কি বিক্রি করবেন সেটা সম্পর্কে ডিটেইলস জানতে হবে। প্রডাক্ট সোর্সিংয়ের ব্যপারটা গুরুত্বপূর্ণ।
বেশি দামে পণ্য কিনে সেল করতে পারবেন না।

তৃতীয়ত, প্রেজেন্টেশন খুবই প্রয়োজনীয় একটা বিষয়। এটার সাথে মার্কেটিং প্রত্যক্ষভাবে জড়িত।
প্রেজেন্টেশন সুন্দর না হলে কাস্টমার অনাগ্রহ দেখায়।

চতুর্থত, প্রডাক্ট ফটোগ্রাফি করতে হবে খুবই সুন্দরভাবে। অাপনি যখন অায়রন করে পোশাক পরবেন তখন অাপনাকে কেমন দেখাবে অার দুমরানো দুমড়ানো মোচড়ানো কাপর পড়লে কেমন দেখাবে নিজেই ভাবুন!!”

পঞ্চমত, খুবই ধৈর্যের সঙ্গে কাস্টমারের সাথে কথা বলতে হবে। অাপনার বাসায় কেউ অাসলে তার সাথে অান্তরিক হওয়াটা অাপনার দায়িত্ব।

ষষ্ঠত, বুস্টিং সম্পর্কে ভালো ভাবে জানতে হবে। মার্কেটিং এর এটাও একটা অংশ।

সপ্তমত, ডেলিভারি এজেন্সি সম্পর্কে ডিটেইলস জেনে পণ্য দিবেন। না হলে বড় মাপের লসে পরার সম্ভাবনা থাকে।

বিজনেস মানেই ধাক্কাধাক্কি।এটা সামলে ওঠার মন মানুসিকতার মধ্যে দিয় এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

অাশা করছি পোস্টটি অাপনাদের কাজে অাসবে।
ধন্যবাদ

Thanks
JhumaHossain
Www.designercollectionb.Com

পেইজ নিয়ে বিজনেস পার্ট –২ঃ

পেইজ নিয়ে বিজনেস পার্ট –২ঃ

একটা পেজ ওপেন করেছেন প্রথমে দুই থেকে তিন মাস পেইজটাতে সময় দিন। প্রতিদিন অন্তত তিন থেকে চারটা পোস্ট দিন। পেইজে কন্টেন্ট রেডী করুন। পেইজটা যেন ওপেন করলে অন্তত কিছু পোস্ট পায় দেখার জন্য।

মনে করেন অাপনি একটা দোকানে গিয়েছেন সেখানে দেখলেন তেমন কিছু নেই অাপনি ওই দোকানে দ্বিতীয়বার যাবেন না এটাই স্বাভাবিক। বলবেন দোকানটা গরীব। কিন্তু দোকানটা সাজানো যদি ভালো এবং প্রয়োজনীয় পণ্য থাকে তবে অবশ্যই বারবার যাবেন।

বিষয় টা এখানেও একই রকম। কাজ করার সাথে অবশ্যই পন্যের কন্টেন্ট এবং ফটোগ্রাফি নিয়ে কাজ করুন। এটার মানসম্মত উপস্থাপন অনেকটাই এগিয়ে নিয়ে যাবে।

একটা নতুন পেইজকে পরিপূর্ণভাবে সাজানো জরুরী।পেইজের রিচ এটার উপরও নির্ভর করে। এরপর অনেকে অাছেন মনে করেন স্টকে পণ্য কম তারা কী করবেন???

তারাও একিভাবে নিয়মিত পোস্ট দিতে থাকুন।পণ্য কম বেশি থাকতে পারে।তবে উপস্থাপন সুন্দর হওয়াটা জরুরী, পণ্যের কোয়ালিটি মেইনটেইন করাটা জরুরী। নিজের কাজে স্বচ্ছতা রাখুন।

একটা পেইজ মেইনটেইন করতে যেসব বিষয় মেইনটেইন করতে হবে ঃ

১.একটা পরিপূর্ণ তথ্য সম্বলিত পেইজ তৈরী করতে হবে।

২.পেইজের অবশ্যই লোগো থাকতে হবে।
৩.কন্টেন্ট অাকর্ষণীয় হতে হবে।
৪.ফটোগ্রাফি ভালো হতে হবে।
৫.নিয়মিত থাকতে হবে পেইজে।
৬.মনোযোগী হতে হবে কাজে।
৭.কাস্টমারকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করতে হবে।
৮.যত দ্রুত সম্ভব কাস্টমারের প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।

সামনে এই ৮ টা টপিকের উপর ভিডিও থাকবে ইউটিউবে।

নির্বাহী পরিচালক
Designer collection

YOU tube channel
https://www.youtube.com/channel/UC2s8eS1-8x4HVfItfooUHtA

একটা অনলাইন পেইজ নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন ভাবছেন??

একটা অনলাইন পেজ নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন ভাবছেন??
কিন্তু এইটা জানেন না কিভাবে!!

প্রথমত একটা পেজের এমন একটা সিলেক্ট করুন যে নামটা মানুষকে বুঝতে সাহায্য করে অাপনি কি নিয়ে কাজ করছেন।

এই বিজনেস নিয়ে যদি বহুদূর যাওয়ার ইচ্ছা থাকে তবে নামটা অবশ্যই ইংরেজিতে রাখুন।
প্রয়োজনে কোলন ব্যবহার করে বাংলা ইংলিশ দুইভাবে লিখুন। যেমন – (Designer:ডিজাইনার) ।
নামটা ছোট এবং অর্থপূর্ণ হলে বেশী ভালো।

পেজ তো ওপেন করলেন কিন্তু লাইক নেই, কিভাবে কি করবেন। কিছু বাই এন্ড সেল গ্রুপে এক্টিভ থাকুন এবং পাশাপাশি যেসব গ্রুপ থেকে কিছু শেখা যায় এমন কিছু গ্রুপ থেকে শিখতে থাকুন। একসাথে অনেকগুলো গ্রুপে টাইম ম্যানেজ করাটা কঠিন।তাই যে কয়টা গ্রুপে থাকবেন সেখানে অবশ্যই নিয়মিত থাকুন এবং প্রতিদিন নিজের পেজেও পোস্ট দিতে থাকুন। যখন মোটামুটি সেল অাসা শুরু হবে প্রফিটের কিছু টাকা দিয়ে পেজের লোগোটা কনফার্ম করুন। এবং অল্প অল্প করে প্রমোট করুন পেজটা নিয়মিত। যখন লাইক ১০,০০০ হয়ে যাবে দেখবেন পেজের রিচ ও বাড়তে শুরু করবে।

পেজের লাইক কমেন্টের উপর এর সেল নির্ভর করে না। তাই এটা নিয়ে চিন্তিত না হয়ে প্রতিদিন পেজে সময় দিতে থাকুন।

এভাবেই কাজ করতে করতে একসময় পেজ থেকে একটা ভালো ফিডব্যাক পাওয়া শুরু করবেন ইনশাআল্লাহ।

মনে রাখবেন নিয়মিত না থাকলে এবং নিজের মেধাকে যদি কাজে লাগাতে না পারেন তাহলে সকল পরিশ্রমই বৃথা। নিয়মিত থাকার সাথে অারো অনেক বিষয় সম্পৃক্ত। সবটা নিয়ে বলব তবে একটু ধীরে ধীরে।

জানতে অাগ্রহী থাকলে অবশ্যই ব্লগে সাবস্ক্রাইব করুন এবং ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন।

কখন কোথায় কোন অাপডেট থাকবে পুরোটাই রহস্য।

ধন্যবাদ
নির্বাহী পরিচালক
Designer Collection
Www.designercollectionbd.com

Youtube channel :

https://www.youtube.com/channel/UC2s8eS1-8x4HVfItfooUHtA

অনলাইন বিজনেস মানেই হলো সময়ের খেলা

অনলাইন বিজনেস মানেই হলো সময়ের খেলা ঃ

জানেন কেন বলছি এই কথা।অাসলে অনলাইন বিজনেস যারা করে এবং যারা সফল তারা প্রচুর সময় দিচ্ছে এই দুনিয়ায়।

একটু খেয়াল করুন অাশপাশের সবাইকে।যারা সফল তারা কি করছে!!! কিভাবে করছে।।

যারা লাইভ করে বিজনেস করে তাদেরকে দেখেছি দিনে দুই থেকে তিনটা লাইভ করতে।
ক্যাটেগরীওয়াইজ পণ্য নিয়ে লাইভ

এরপরে অাসেন যারা পেজে পোস্ট দিয়ে কাজ করছে তারা পেজে সারাদিন এক্টিভ এবং পেজটার উপস্থাপনে যত্নশীল।

তারপর যদি বলি গ্রুপ থেকে বিজনেস। সেটাও কিন্তু যারা নিয়মিত তারাই জায়গা করতে পারে। তাহলে পণ্য স্টক করার পর অাপনার পরিশ্রম বাড়াতে হবে অনেক বেশী। তাহলেই দিনশেষে সমাধান পেয়ে যাবেন ইনশাআল্লাহ।

ধন্যবাদ
Jhuma Hossain
নির্বাহী পরিচালক
Designer Collection

Website: www.designercollectionb.Com

মার্কেট এনালাইসিস কেন করবেন?

পণ্যের প্রচারে অাপনার এলাকা ভিত্তিক একটা ধারণা থাকা খুবই জরুরী।
যেমন কোন এলাকার মানুষ কি খেতে পছন্দ করে, কোনটা তাদের বিশেষত্ব,কোন ধরনের পোশাক তারা বেশি পড়ে এবং তাদের ধ্যান ধারণা কেমন!!!

একটা গ্রুপে বিভিন্ন রকম মানুষ থাকে। এদের মধ্যে হাজার জনের হাজার মত। সব পণ্য সব জায়গায় চলে না। তাই অবশ্যই বুঝে শুনে পোস্ট করতে হবে।

এমনকি ফ্যামিলি স্ট্যান্ডার্ডের উপরও মানুষের রুচি নির্ভর করে। তাই কন্টেন্ট অবশ্যই স্ট্যান্ডার্ড এবং স্পষ্ট হতে হবে।

অনেকেই নিয়মিত পোস্ট করছে কিন্তু সেল হচ্ছে না।
কারন হলো রাইট স্পেসে রাইট প্রডাক্ট ক্লিক করছেন না তিনি। তাই মার্কেটের গুরুত্ব বোঝা এবং মার্কেট এনালাইসিস করতে পারাটা খুবই জরুরী।

মার্কেট এনালাইসিস করাটা বিজনেসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটা যে পারবে না সে কখনই ব্যবসা করতে পারবে না। একদিনে এটা হবে না। কাজ করতে করতেই মানুষ শিখে। অামিও শিখছি প্রতিনিয়ত।

অাপনারা অনেকেই বিজনেস নিয়ে হতাশ। সত্যিকার অামাদের পোস্টগুলো এবং গাইডলাইনগুলো ফলো করলে অনেকটা হতাশা থেকে বের হয়ে অাসা সম্ভব।

ধন্যবাদ
Jhuma Hossain
Page Designer Collection
Www.designercollectionbd.com

কিভাবে পেজ রিচ এবং পোস্ট রিচ বাড়বেঃ

  1. অাপনার একটি পেজ অাছে।
    নিয়মিত পোস্ট করছেন কিন্তু তারপরও রিচ কম।
  2. অাপনি দিনে বেশীরভাগ সময়ই পেজে থাকছেন তাও কেউ পোস্টে লাইক দিচ্ছে না!!
  •  

 

 

 

 

 

 

 

তাহলে কি করতে হবে??

অাপনার পেজের সর্বপ্রথম প্রডাক্ট ফটোগ্রাফি এবং কন্টেন্ট স্পষ্ট রাখুন। যেটা অাপনার পণ্য সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দিবে।

এখন যা করবেন পেজে অবশ্যই সময় দিবেন।প্রতিদিন অন্তত দুই থেকে তিনটা পোস্ট।

এর সবটাই অাপনি করছেন তারপর রিচ পাচ্ছেন না। তাহলে একটু কষ্ট করে পেজের Add story option এ যাবেন। সেখানে অাপনার পেজের রানিং প্রডাক্টের একটা ভালো ছবি এড করুন। এভাবে অাপনি ৮-১০ টাকা ছবি বা তারও বেশী এড করতে পারবেন।

এখান থেকে অাপনার পেজের রিচ অাসবে এবং বাড়বে।এই কাজটা অবশ্যই অাপনাকে পোস্টের সাথে নিয়মিত করতে হবে।

তবেই ৪-৫ দিনের মধ্যে অাপনি পরিবর্তন চোখে দেখতে পাবেন।

কাজ যেটাই করেন না কেন নিয়মিত করুন।তবেই রেজাল্ট অাসবে।

Add story থেকেও নতুন কাস্টমার রিচ করে এবং বায়ার ক্রিয়েট হয়।

কিন্তু এটার জন্য অাপনার কন্টেন্ট এবং ফটোগ্রাফি এবং অন্যান্য এক্টিভিটির ও গুরুত্ব রয়েছে ব্যাপক।

ধন্যবাদ
Jhuma Hossain
Page Designer Collection
Website www.designercollectionbd.com

পোস্ট থেকে আপনার চাহিদা কী

একটা ভালো মানের গ্রুপের সাথে কাজ করতে পারার অন্য রকমের অানন্দ অাছে।
এখানে কেউকে ছোট বড় করা হয় না। যার যার জায়গায় নিজেকে প্রমান করার সুযোগ অাছে।

অনেকেই অাছেন এই গ্রুপে এক লাইন দুই লাইনের পোস্ট লিখে পোস্ট করছেন।

সিরিয়াসলি অাপনি কি চান এই পোস্ট থেকে বলবেন কী!!

কারন এই পোস্ট থেকে অাপনার সম্পর্কে তো কোনো ধারণাই পাওয়া যায় না এবং পণ্য সম্পর্কে ও কিছু বোঝা যায় না।

এক লাইনের পোস্ট লিখে রেসপন্স পাওয়ার জন্য সেলিব্রিটি হওয়াটা জরুরী।

এধরনের এক একটি পোস্ট অাপনার র‍্যাংকিং নিচে নামানো ছাড়া উপরে নিবে না।

যদি পণ্য সেল করতে চান এবং নিজের পরিচিতি তৈরী করতে চান তবে অবশ্যই গুরুজনদের সম্মান করুন, নিজের কাজকে সম্মান করুন অবহেলা নয়।

বিশ্বাস করুন বা নাই করুন দিনশেষে অাপনার কর্মই অাপনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বা পিছিয়ে নিয়ে যাবে।

কারন কর্মই একমাত্র অাপনার সাথে থাকবে।
এটা থেকে যে অর্জন তা শেষ পর্যন্ত থাকবে।

Thank you
JhumaHossain
Www.designercollectionbd.com
Page Designer Collection

পণ্যের বিজ্ঞাপণ কিভাবে উপস্থাপন করব ঃ

অাসুন জেনে নিই পণ্যের বিজ্ঞাপণ কিভাবে উপস্থাপন করব ঃ

#১.যে পণ্য নিয়ে কাজ করছি সেটা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা তুলে ধরি।

#২. পণ্যটি কিভাবে ব্যবহার করলে ভালো হতে পারে সেটি নিয়ে কিছু বলি

#৩. পণ্যের খুটিনাটি কারিগরি বিষয়গুলো তুলে ধরার চেষ্টা করি।

#৪.পণ্যের একটা সুন্দর ছবি তোলার চেষ্টা করি।

#৫. পণ্য নিয়ে কন্টেন্ট লেখার সময় সহজ এবং বোধগম্য হতে হবে বিষয়বস্তু।

#৬. বিক্রেতার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য তুলে ধরতে পারেন কন্টেন্টে।

#৭.কন্টেন্টের ভাষা অাকর্ষণীয় কিন্তু সহজ সরল হওয়াটা জরুরী।

#৮. ক্যাটেগরী ওয়াইজ পণ্যের পার্থক্য তুলে ধরতে পারেন।

#৯. যুগোপযোগী অায়োজন রাখতে হবে।

#১০. প্রয়োজনে ভিডিও কন্টেন্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

Thank YOu
Jhuma Hossain
Www.designercollectionbd.com
page Designer Collection
https://www.facebook.com/verycomfortablecollection/